শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৩:৫৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
সাদুল্লাপুরে প্রকাশ্যে বিনামূল্যের ভিজিএফ এর চাউল বেচাকেনা সুন্দরগঞ্জে কুরবানীর হাটে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ গ্রেফতার আতঙ্কে চার গ্রামে ঈদের আনন্দ বিষাদে পরিণত পলাশবাড়ীতে চায়না দুয়ারী শয়তান জাল পুড়িয়ে দিলেন অবশেষে গাইবান্ধা প্রেসক্লাব সিলগালা রাজস্ব হারাচ্ছে সরকারঃ জব্দ হওয়া হাজারো যানবাহন খোলা আকাশের নিচে সুন্দরগঞ্জের ভিজিএফ চাল বিতরণ ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে কামার সম্প্রদায় চাকু-ছোড়া ও বটির বানাতে ব্যস্ত সময় পাড় করছে খোলাহাটিতে আগুনে ৫ দোকান পুড়ে ছাই সুন্দরগঞ্জে পশুরহাটে পুলিশ জনতা-সংঘর্ষে ৪ রাউন্ড গুলি বর্ষন পুলিশসহ আহত ১০ গাইবান্ধা পৌর এলাকায় অপরিকল্পিত ভাবে কৃষি জমিতে বাড়ী নির্মান

সুন্দরগঞ্জে আশ্রায়ণ প্রকল্পে রাস্তার অভাবে চরম দুর্ভোগে আশ্রিতরা

সুন্দরগঞ্জে আশ্রায়ণ প্রকল্পে রাস্তার অভাবে চরম দুর্ভোগে আশ্রিতরা

স্টাফ রিপোর্টারঃ সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ভূমিহীন-হতদরিদ্রদের জন্য মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে নির্মিত আশ্রায়ণ প্রকল্পের অধিকাংশে যাতায়াতের রাস্তা না থাকায় আশ্রিতরা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন।
জানা গেছে, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে বিভিন্ন ইউনিয়নে ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষের মাথা গোজার ঠাঁই নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে নির্মাণ করা হয় পাঁচ শতাধিক আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর। সরকারি খাস জমির উপর গুচ্ছ গ্রাম আকারে কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে ঘরগুলো নির্মাণ করেন স্থানীয় প্রশাসন ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অধিদপ্তর। সবগুলো ঘরে ইতোমধ্যে বিভিন্ন এলাকার ভূমিহীন-হত-দরিদ্র মানুষজন মাথা গোজার ঠাঁই খুঁজে পায়।
আশ্রায়ণ প্রকল্পে ঠাই পাওয়া এসব মানুষজন ঘর পেয়ে আনন্দে উদ্দোলিত হলেও তাদের নানান সমস্যার শিকার হতে হচ্ছে। আশ্রায়ণ প্রকল্প নির্মাণ সংশ্লিষ্টদের অপরিকল্পিত প্রকল্প স্থান নির্ধারণের কারণে আশ্রিতরা যাতায়াতের রাস্তার অভাবে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। তারা অন্যের বাড়ির উঠান বা জমির উপর দিয়ে কোনো রকমে যাতায়াত করলেও প্রতিনিয়ত তাদের প্রতিবন্ধকতার শিকার হতে হচ্ছে। যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দেয়ার মতো হুমকি-ধামকিও শুনতে হচ্ছে তাদের। এছাড়া পানীয় জলের ব্যবস্থা নিশ্চিত করণের জন্য হস্তচালিত নলকূপ বসানো হলেও তা অকেজ হয়ে পড়ে আছে। এতে করে তারা বিশুদ্ধ পানীয় জলের তীব্র সংকটে পড়েছেন।
সরেজমিন বৈদ্যনাথ, ঘোষপাড়া, রামজীবন, বজরা কঞ্চিবাড়ী, লাঠির খামারসহ বেশ কয়েকটি আশ্রায়ণ প্রকল্প পরিদর্শন করে দেখা গেছে সবগুলোতে আশ্রিতদের যাতায়াতের রাস্তা ও পানীয় জলের অভাবে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বজরা কঞ্চিবাড়ী আশ্রিত মমতাজ বেগম, মহির উদ্দিন, ফুলমতি, আমেনা, মরিচমতি, আজিরন, সানজুসহ অনেকে জানান ঘর পেয়ে তারা খুবই খুশি। কিন্তু যাতায়াতের রাস্তা না থাকায় রোগী থেকে শুরু করে প্রাকৃতিক দুর্যোগে দ্রুত সাহায্যে এগিয়ে আসার মতো কোরো উপায় নেই। এটিই তাদের বড় সমস্যা।
উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো সমাধান পাচ্ছেন না। মানুষ তাদের যাতায়াতের রাস্তা হিসেবে জায়গা কতদিন ব্যবহার করতে দেবেন এ নিয়ে তারা মহা চিন্তায় রয়েছেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ওয়ালিফ মন্ডল জানান, আমরা স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে আশ্রায়ণ প্রকল্পের যাতায়াতের রাস্তা নিশ্চিত করণের জন্য চেষ্টা করছি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তরিকুল ইসলাম বলেন, তিনি বিষয়টিতে অবগত এবং চেষ্টা করছি স্থায়ীভাবে রাস্তা বের করে দেয়ার জন্য।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com