সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১১:৪৬ পূর্বাহ্ন

সাদুল্লাপুর উপজেলায় পেঁয়াজের আবাদ কমেছে

সাদুল্লাপুর উপজেলায় পেঁয়াজের আবাদ কমেছে

স্টাফ রিপোর্টারঃ পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। এর পরও আবাদ কমিয়ে দিয়েছেন সাদুল্লাপুর উপজেলার কৃষকরা। গত আট বছরে এখানে পেঁয়াজ চাষ কমেছে ৯০ হেক্টর জমিতে। এতে বছরে পেঁয়াজ ঘাটতি হচ্ছে ৭০০ টন। এ সমস্যা সমাধানে পেঁয়াজ চাষিদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও সরকারি প্রণোদনার অভাবকে দায়ী করছেন কৃষকরা।
কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী উপজেলায় বছরজুড়ে ১৭ হাজার ৯৩৫ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ফসল চাষাবাদ হয়। এর সঙ্গে জড়িত প্রায় ৬৫ হাজার কৃষক। এর মধ্যে প্রশিক্ষণ পেয়েছেন মাত্র ৪৯০ জন। প্রণোদনা পেয়েছেন ৩৫০ জন কৃষক, যা খুবই সামান্য বলেছেন স্থানীয় কৃষকরা।
কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় ২০১৫-১৬ মৌসুমে ১৩০ হেক্টর ও ২০১৬-১৭ মৌসুমে ১৪০ হেক্টরে পেঁয়াজ চাষ হয়েছে। এর পর থেকে আবাদ কমতে থাকে। দেখা গেছে, ২০১৭-১৮ মৌসুমে ৮৫ হেক্টর, ২০১৮-১৯ মৌসুমে ৭০, ২০১৯-২০ মৌসুমে ৯০, ২০২০-২১ মৌসুমে ৮০, ২০২১-২২ মৌসুমে ৬০ এবং ২০২২-২৩ মৌসুমে ৪০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ আবাদ হয়েছে। প্রতি বছর পেঁয়াজের চাহিদা ২ হাজার ৬০০ টন। উৎপাদন হচ্ছে ১ হাজার ৯০০ টন। এতে ঘাটতি থাকা পেঁয়াজ আমদানি করতে হচ্ছে। এ সুযোগে বাড়তি দাম হাতিয়ে নিচ্ছে একটি চক্র।
দিন দিন কেন পেঁয়াজের আবাদ কমছে এ প্রশ্ন করা হলে কৃষি বিভাগের উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা আব্দুর রব সরকার বলেন, কৃষকরা এক সময় পেঁয়াজের উপযুক্ত মূল্য পাননি। উৎপাদন খরচই উঠত না।
তাই পেঁয়াজের বদলে অন্য ফসলে ঝুঁকে পড়েন। এখন দাম বেড়েছে।
হয়তো আবাদ বাড়বে।
অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা মাহবুবুল আলম বসুনিয়া জানান, উপজেলায় ৪০ হেক্টর জমিতে আবাদ করা মুড়িজাতের পেঁয়াজ উত্তোলন শুরু হয়েছে। কম দামেই পাওয়া যাচ্ছে এই পেঁয়াজ। বাজার সিন্ডিকেট ভাঙতে সবারই এখন কাঁচা পেঁয়াজ কেনা উচিত। তিনি আরও বলেন, পেঁয়াজের আবাদ বাড়াতে উপজেলার ৩৫০ জন কৃষকের প্রত্যেকে ১ কেজি বীজ, ১০ কেজি এমওপি এবং ১০ কেজি ডিএপি সার পেয়েছেন। চাষ খরচ বাবদ দেওয়া হয়েছে ২ হাজার ৮০০ টাকা। এ জন্য প্রশিক্ষণ পেয়েছেন ৪৯০ জন কৃষক।
প্রণোদনা এবং কৃষক প্রশিক্ষণ বাড়াতে হবে বলে মনে করেন উত্তর কাজীবাড়ী সন্তোলা গ্রামের কৃষক লাল মিয়া। তিনি বলেন, লোকসানের আশঙ্কা থাকলে কৃষকরা সেই ফসল চাষ করতে চান না। উপযুক্ত দাম নিশ্চিত করলে তারা আবার পেঁয়াজ চাষে আগ্রহী হবেন। সবার আগে দেখতে হবে কৃষকের স্বার্থ।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com