শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৭:২৫ অপরাহ্ন

সাঘাটায় সিপিগারামারা চরে মাথা গোঁজার ঠাঁই পাচ্ছে ৮০ পরিবার

সাঘাটায় সিপিগারামারা চরে মাথা গোঁজার ঠাঁই পাচ্ছে ৮০ পরিবার

স্টাফ রিপোর্টারঃ মুজিব জন্মশতবর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে সাঘাটা উপজেলায় ভূমি ও গৃহহীনদের জন্য ১৬টি ব্যারাক নির্মাণ করা হয়েছে। এতে উপজেলার ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারগুলোর ভাগ্য বদলে যাবে। তারা পাবে মাথা গোজার ঠাঁই। প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় চরাঞ্চলের ৮০টি পরিবারের জন্য গৃহ নির্মাণের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। অধীর আগ্রহে উপকারভোগীরা সময় পার করছেন কখন তাদের স্বপ্নের গৃহে উঠবে। আশ্রয়ণের অধিকার শেখ হাসিনার উপহার মুজিববর্ষে সাঘাটা উপজেলায় গৃহহীন ও ভুমিহীন মানুষের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আবাসন হিসেবে প্রদত্ত এসব ব্যারাক নির্মাণের কাজ সম্পন্ন করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। গত সোমবার দুপুরে সাঘাটা উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের সিপিগারামারা চরে নির্মিত চার ইউনিট বিশিষ্ট ১৬টি ব্যারাকের ৮০টি গৃহ হস্তান্তর করেন প্রকল্পের প্রধান সমন্বয়কারী মেজর এসজিএস জাকি। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের অধিনস্থ ৭২ ব্রিগেডের ৩৪ ই-বেঙ্গল (মেক)-এর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় নির্মাণ কাজ শেষে সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ জাহাঙ্গীর কবীর ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের কাছে এসব ব্যারাকের চাবি হস্তান্তর করা হয়। এসময় লেফটেন্যান্ট কিবরিয়ার নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর একটি পরিদর্শন টিমসহ গাইবান্ধা জেলা পরিষদ সদস্য মোঃ সাখোওয়াত হোসেন, সাঘাটা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিঠুন কুন্ডু, হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী প্রধান, প্রকল্প চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল, জিল্লর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সেনাবাহিনীর কাছ থেকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের চাবি গ্রহন করে সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ি সাঘাটার সিপিগারামারা চরের ৮০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য ব্যারাক নির্মাণ শেষ হয়েছে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে উপকারভোগীদের তালিকা প্রনয়ণ করে এসব ঘর তাদের হস্তান্তর করা হবে। সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ জাহাঙ্গীর কবীর জানান, ১ কোটি ৪৪ লাখ ১৬ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ আশ্রয়ন প্রকল্পে ৪টি ইউনিটে ১৬টি পাকা ব্যারাকে ৮০টি সেমি পাকা ঘর, ১টি মসজিদ, ১০টি নলকুপ ও ৩২টি শৌচাগার স্থাপন করা হয়েছে। গত ২০২০ সালের ডিসেম্বরে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়ে ১৫ ফেব্রুয়ারি নির্মাণ সম্পন্ন হয়। এতে ৮০টি গৃহহীন পরিবারের পূণর্বাসন হবে।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

 

 

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com