শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:১৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
সাদুল্লাপুরে ১ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার গোবিন্দগঞ্জে কলা বাগান থেকে গলাকাটা লাশ উদ্ধার পলাশবাড়ী পৌরসভা নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ হবে -নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর নিয়ে যারা কথা বলছেন তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নয় -ডেপুটি স্পীকার সাঘাটায় অন্যের জমিতে বালু রেখে ক্ষতিসাধন ধাপেরহাটে ৫টি বৈদ্যুতিক মিটার চুরিঃ মুক্তিপন দিয়ে উদ্ধার-৩ কৃষকদের পরিশ্রমের কারণেই আজ বাংলাদেশ উন্নত -ডেপুটি স্পীকার পলাশবড়ি পৌর নির্বাচন উৎসব মুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে – নির্বাচন কমিশনার আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত কঞ্চিবাড়ি ইউপি ভবন ছাদে ফলদ বাগান করে এলাকায় আলোরণ সৃষ্টি

সাঘাটায় চাকুরী দেওয়ার নামে মোটা অংকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মাদ্রাসার সুপারকে সাময়িক বরখাস্ত

সাঘাটায় চাকুরী দেওয়ার নামে মোটা অংকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মাদ্রাসার সুপারকে সাময়িক বরখাস্ত

সাঘাটা প্রতিনিধিঃ সাঘাটা উপজেলার শ্যামপুর গ্রামে ১৯৯৪ সালে মনোরম পরিবেশে নাসির উদ্দিন প্রধান দাখিল মাদ্রাসাটি স্থাপিত হয়। প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকেই মেধাবী শিক্ষক দ্বারা মাদ্রাসাটি পরিচালিত হয়ে আসছিল। সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার নুরুন্নবী উক্ত মাদ্রাসায় ২০০৭ইং সালে কাজী মাহফুজুল হান্নানকে সুপার হিসেবে মৌখিক ভাবে দায়িত্ব প্রদান করেন। দায়িত্ব পাবার পর থেকেই সুপার কাজী মাহফুজুল হান্নান ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির সিদ্ধান্ত ছাড়াই মনগড়া ভাবে উৎকোচের বিনিময়ে ১১ জন শিক্ষক কর্মচারী নিয়োগ দেয়। এছাড়াও তিনি মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকেই চাকুরীরত দু’জন শিক্ষকের বিপরীতে অপর দু’জন শিক্ষককে নিয়োগ দেন। টাকা প্রদানকারী ব্যক্তিরা চাকুরী না পেয়ে সুপারের কাছে টাকা ফেরত চাইলে সুপার গা ঢাঁকা দেয়। গত ২০/০৫/২০২০ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে মাদ্রাসার এমপিও ভূক্ত সংক্রান্ত জরুরী সভায় উল্লেখিত সুপার উপস্থিত হয় নি। মোবাইল ফোনেও তাঁকে পাওয়া যায় নি। টাকা প্রদানকারী ব্যক্তিরা চাকুরী না পেয়ে বাধ্য হয়ে সুপারের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। চাকুরী দেওয়ার নামে টাকা গ্রহণ সহ নানা দূর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হলে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটি গত ০৪/০৫/২০২০ইং তারিখে উক্ত সুপারকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন।
এ ব্যাপারে মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার নুর নবী প্রধানের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, সুপারের বিরুদ্ধে উক্ত অভিযোগ পাওয়ার পর তিনি টাকা নেওয়ার কথা জানতে পেরেছেন এবং অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় সুপারকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।
সাঘাটা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আহসান হাবীবের সাথে কথা হলে তিনি জানান, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে যেসব শিক্ষক মাদ্রাসায় কর্মরত আছেন তাদেরকে বাদ দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। তবে সুপারের টাকা আত্মসাতের ব্যাপারে তিনি অবগত নন বলে জানান।
এ ব্যাপারে সুপার কাজী মাহফুজুল হান্নান জানান, সভাপতির বিনা অনুমতিতে কোন শিক্ষক নিয়োগ করা হয় নি। শিক্ষক নিয়োগে উৎকোচ নেওয়ার ঘটনাটি সত্য নহে।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com