বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০২:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
খোর্দ্দকোমরপুর ইউপির উপনির্বাচন স্থগিত কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিঃ গাইবান্ধায় আ’লীগ-বিএনপির অফিসে-হামলা-অগ্নিসংযোগ সুন্দরগঞ্জে কোটা নিয়ে মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সুন্দরগঞ্জে নিখোঁজ যুবকের লাশ একদিন পর উদ্ধার গোবিন্দগঞ্জে ২ মাহিলা ছিনতাইকারী গ্রেফতার মহিমাগঞ্জে প্রধান গ্রুপের সার্ভার স্টেশনে অগ্নিকান্ডে ৫০ লক্ষ টাকার ক্ষতি পলাশবাড়ীতে মোটরসাইকেল সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ঃ আহত ১ জন গোবিন্দগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালেয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ফলজ বৃক্ষের চারা বিতরণ তিস্তার পানি কমার সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে ভাঙন শুরু হয়েছে পলাশবাড়ীতে মটরসাইকেলের ধাক্কায় যুবক নিহত

সাঘাটায় আমন ধানে পোকার উপদ্রব

সাঘাটায় আমন ধানে পোকার উপদ্রব

স্টাফ রিপোর্টারঃ হতাশায় দিন কাটছে গাইবান্ধার হাজার হাজার আমন ধান চাষির। ফসলে পোকার উপদ্রব বেড়েছে। আমন ধানের ক্ষেত রক্ষায় বারবার কীটনাশক প্রয়োগ করার পরেও কোনো সুফল মিলছে না। কৃষি পরামর্শ দিতে মাঠ পর্যায়ে কোনো কৃষি কর্মকর্তা কৃষকদের পাশে নেই বলেও কৃষকদের অভিযোগ।
তবে কৃষি বিভাগ বলছে, পোকার আক্রমণ থেকে ফসলকে বাঁচাতে আলোক ফাঁদ, জৈব কীটনাশক, বালাইনাশক ও কীটনাশক ব্যবহারে কৃষকদের পরামর্শসহ মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের সচেতনতায় মাঠে কাজ করা হচ্ছে।
সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া ও কচুয়া ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, বিঘার পর বিঘা আমন ধানের ক্ষেত পোকায় আক্রমণের ফলে সাদাটে হয়ে গেছে। কৃষকরা স্প্রে মেশিন দিয়ে ফসলে কীটনাশক দিচ্ছেন।
পোকায় খাচ্ছে কৃষকের স্বপ্ন
কচুয়া ইউনিয়নের গাছাবাড়ী গ্রামের কৃষক আব্দুল আউয়াল বলেন, আমি সাত বিঘা জমি বর্গা নিয়ে আমন ধানের চাষ করেছি। জমি প্রস্তুত, সার, পানি সব দেওয়ার পরে যখন ধান গোলায় তোলার স্বপ্ন দেখছি, ঠিক তখনই ফসলে দেখা দিয়েছে পোকার আক্রমণ। পোকা দমনের চেষ্টায় প্রতিদিন কীটনাশক স্প্রে করতে হচ্ছে।
কচুয়া ইউনিয়নের গাছাবাড়ী গ্রামের কৃষক মশিউর রহমান বলেন, বিভিন্ন রোগ ও পোকার আক্রমণে বিঘার পর বিঘা আমন ধানের ক্ষেত নষ্ট হচ্ছে। স্থানীয় বাজার থেকে মনগড়াভাবে একাধিক কোম্পানির কীটনাশক সংগ্রহ করে ক্ষেতে প্রয়োগ করেও রক্ষা হচ্ছে না।
উপজেলার কচুয়া ইউনিয়নের সাবেক ইউপি মেম্বার ফরমান আলী বলেন, রোগের ধরন দেখে কৃষি বিভাগ থেকে কোনো পরামর্শ পাওয়া পাচ্ছে না। কৃষকদের এমন ক্ষতির জন্য কৃষি বিভাগ দায়ী। তবে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগী অস্বীকার করেছেন সাঘাটা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সাদেকুজ্জামান। তিনি বলেন, মাঠ পর্যায়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে কৃষকদের সচেতন করা হচ্ছে। যেসব কৃষকের জমিতে পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে তাদের জমিতে গিয়ে পরামর্শসহ কীটনাশক দেওয়া হয়েছে।
গাইবান্ধা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ বেলাল উদ্দিন বলেন, পোকার আক্রমণ থেকে ফসলকে বাঁচাতে আলোক ফাঁদ, জৈব কীটনাশক, বালাইনাশক ও কীটনাশক ব্যবহারে কৃষকদের পরামর্শ দিতে মাঠে কৃষি বিভাগ কাজ করছে। যেসব এলাকায় পোকার আক্রমণের কথা জানলাম আমি সংশ্লিষ্ট কৃষি কর্মকতাকে ব্যবস্থা নিতে বলবো।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com