মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৫১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
সাদুল্লাপুরে ঝুকি নিয়ে নৌকা ও বাঁশের সাঁকোয় নদী পারাপার গাইবান্ধায় যুগান্তরের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন গোবিন্দগঞ্জ রংপুর ইপিজেড বাস্তবায়নের দাবীতে মানববন্ধন সাঘাটায় ২০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ এক মাদক কারবারি আটক গাইবান্ধায় জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতির মিলনমেলা রোগ পরীক্ষা নামে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে হেলথ প্লাস ডায়াগনস্টিক সেন্টার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় এসএসসির প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে ২ শিক্ষক আটক সুন্দরগঞ্জে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা প্রেমিকের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন গাইবান্ধা পাসপোর্ট অফিসে দুদকের অভিযানঃ গ্রেফতার ৩ পলাশবাড়ীতে মাদকসহ ৩ কারবারি গ্রেফতার

ভেড়া পালন করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন চরাঞ্চলের নারীরা

ভেড়া পালন করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন চরাঞ্চলের নারীরা

স্টাফ রিপোর্টারঃ ব্রহ্মপুত্র নদসহ তিস্তা ও যমুনা নদীবেষ্টিত গাইবান্ধার চরাঞ্চলগুলোতে ভেড়া পালন করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন হতদরিদ্র নারীরা। এতে আরও সহায়ক ভূমিকা পালন করবে কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে উন্নত জাতের ভেড়া পালন। শুধু তাই নয়, উঠানে সবজি চাষ করে সংসারে স্বচ্ছলতার মুখ দেখছেন তারা। ফ্রেন্ডশিপের টেকসই উন্নয়নে সহায়ক প্রকল্প (এএসডি) এতে সহযোগিতা করছে।
গাইবান্ধা প্রাণিসম্পদ বিভাগ, প্রাণিসম্পদ গবেষক ও এএসডি সূত্রে জানা গেছে, গাইবান্ধার সাত উপজেলায় ভেড়া আছে ৬৯ হাজার ৫৫২টি ও চর আছে ৮০টি। এসব চরাঞ্চলে ভেড়া আছে তিন সহস্রাধিক। ময়মনসিংহস্থ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) সার্জারি ও অবস্টেট্রিক্স বিভাগের কারিগরী সহযোগিতায় দেশী ভেড়াকে ভারতের মোজাফফর নগর জাতের বীজ (শুক্রানু) দিয়ে কৃত্রিম প্রজনন করা হচ্ছে। এজন্য ভেড়ার বয়স কমপক্ষে আট মাস, সুস্থ্য ও স্বাস্থ্যবান কিনা, রক্ত পরীক্ষা, আল্ট্রাসনোগ্রাম, গরম করার হরমোন পুশ এবং সবশেষে বীজ (শুক্রানু) দেওয়া হয়।
এই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে চলতি বছরের জুনে গাইবান্ধা সদর, সুন্দরগঞ্জ ও ফুলছড়ি উপজেলার ৮টি চরের ৩৮টি ভেড়াকে কৃত্রিম প্রজনন করানো হয়েছে। এরমধ্যে ৩১টি গর্ভধারন করেছে। এভাবে উন্নতজাতের বীজ দিয়ে কৃত্রিম প্রজননের আড়াই বছর পর একেকটি ভেড়া ৪০ থেকে ৫০ কেজি ওজনের হবে। যার দাম হবে ২৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা। যা দেশীয় ভেড়ার তুলনায় অনেকগুন বেশি। পরবর্তীতে কৃত্রিম প্রজননের এই কাজটি যাতে স্থানীয়ভাবেই করতে পারা যায় সেজন্য চারজনকে প্রশিক্ষণ দিয়ে আনা হয়েছে বাকৃবি থেকে।
ফুলছড়ির উড়িয়া ইউনিয়নের চর কাবিলপুর গ্রামের আনজুমান বেগম (৩৩) বলেন, আগে স্বামীর মুখের দিকে চেয়ে থাকতাম। ফলে সংসারে অভাব-অনটন লেগেই থাকতো। ফ্রেন্ডশিপের দেওয়া একটি ভেড়া থেকে এখন পাঁচটি ভেড়া হয়েছে। যার দাম প্রায় ২০ হাজার টাকা। একই গ্রামের মমেনা বেগম (৪০) বলেন, গতবছর শাক-সবজি বিক্রি করে তিন হাজার টাকা পেয়েছি। এবার দুই হাজার টাকার মতো বিক্রি করেছি। আর দুই হাজার টাকার বিক্রি করতে পারবো। এই টাকায় দুই ছেলে-মেয়ের পড়ালেখার খরচ হচ্ছে। এই গ্রামের শাহনাজ বেগম (৩৫) বলেন, বছরে স্বামীর তিন-চার মাস কাজ থাকলেও বাকী সময়টায় তেমন কাজ থাকেনা। ফলে সংসারে অভাব ছিল। এখন ভেড়া পালনের পাশাপাশি শাক-সবজির চাষ করে বাড়তি আয়ের মুখ দেখছি। এতে সংসারে স্বচ্ছলতা ফিরেছে।
এএসডির প্রকল্প ইনচার্জ দিবাকর বিশ্বাস বলেন, হরমোন দিয়ে গরম করে বছরে দুই বার বাচ্চা দিতে পারে ভেড়া। নয়তো প্রাকৃতিকভাবে গরম হতে গেলে সময় বেশি লাগে।
কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে ভেড়া পালন করলে দ্রুত লাভবান ও স্বাবলম্বী হওয়া যাবে জানিয়ে গাইবান্ধা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ মাছুদার রহমান সরকার বলেন, কৃত্রিম উপায়ে ভেড়াকে গরম করে কৃত্রিম প্রজননে গর্ভধারনের হার অনেক বেশি। ফলে ভেড়ার উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পাবে। এতে করে অনেক কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com