মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
সাদুল্লাপুরে ঝুকি নিয়ে নৌকা ও বাঁশের সাঁকোয় নদী পারাপার গাইবান্ধায় যুগান্তরের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন গোবিন্দগঞ্জ রংপুর ইপিজেড বাস্তবায়নের দাবীতে মানববন্ধন সাঘাটায় ২০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ এক মাদক কারবারি আটক গাইবান্ধায় জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতির মিলনমেলা রোগ পরীক্ষা নামে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে হেলথ প্লাস ডায়াগনস্টিক সেন্টার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় এসএসসির প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে ২ শিক্ষক আটক সুন্দরগঞ্জে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা প্রেমিকের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন গাইবান্ধা পাসপোর্ট অফিসে দুদকের অভিযানঃ গ্রেফতার ৩ পলাশবাড়ীতে মাদকসহ ৩ কারবারি গ্রেফতার

ভুট্টায় সবুজ গাইবান্ধার চরাঞ্চল পরিচর্যায় ব্যস্ত চাষিরা

ভুট্টায় সবুজ গাইবান্ধার চরাঞ্চল পরিচর্যায় ব্যস্ত চাষিরা

স্টাফ রিপোর্টারঃ ফুলছড়ি উপজেলার বেলেরচরে রফিকুল ইসলামের জমিতে একসময় তাঁর দাদা ফলাতেন কাউন। বাবা গম আর এখন রফিকুল ফলাচ্ছেন ভুট্টা। জলবায়ু পরিবর্তন আর সময়ের সঙ্গে জমিতে বদলেছে ফসলের চাষাবাদ। গম ও কাউনের ফলন কমে গেছে। এখন তাই রফিকুলের মতো গাইবান্ধার চরাঞ্চলের কৃষকেরা ঝুঁকেছেন ভুট্টা চাষে। চাহিদার আধিক্য, স্বল্প ব্যয়ে বেশি ফলন ও ভালো দাম পাওয়ায় ভুট্টা চাষে ঝুঁকেছেন তাঁরা। ভুট্টা চাষে অনেক কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। তাদের কাছে ভুট্টা এখন যেন সোনার ফসল।
নদ-নদীবেষ্টিতে উত্তরের জেলা গাইবান্ধায় রয়েছে ১৬৫ চর-দ্বীপচর। সদরসহ জেলার চার উপজেলায় তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র ও যমুনার বুকে এসব চর-দ্বীপচরে ৫ লক্ষাধিক মানুষের বাস। মুলত: কৃষির সাথে যুক্ত এসব মানুষকে প্রতিবছরই বন্যার সঙ্গে লড়তে হয়। তখন বসতভিটা ছেড়ে অনেককেই চলে যেতে হয় অন্য জায়গায়। পানি নেমে যাওয়ার পর শুরু হয় ধীরে ধীরে আবাদ। বন্যার কারণে সাধারণত বছরে দুই ফসলের বেশি আবাদের সুযোগ পায় না এসব চরাঞ্চলের মানুষ। চরের জমিতে নানা ফসলের আবাদ করে থাকেন তারা। অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি চাষ হয় ভূট্টার। চরাঞ্চলের চাষিরা এখন ভুট্টা চাষে দিনবদলের স্বপ্ন দেখছেন। স্বপ্নের এই ফসল পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করেছেন তারা।
গাইবান্ধা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, এ বছর গাইবান্ধায় আবহাওয়া ভাল ও রোগবালাই কম থাকায় ফলনও ভাল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নদ-নদীবিধৌত গাইবান্ধার চরাঞ্চলের মাটি ভুট্টাচাষের জন্য উপযোগী। ফলনও ভালো। এ বছর গাইবান্ধা জেলায় ভুট্টা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ষোল হাজার ৬৬০ হেক্টর ধরা হলেও এখন পর্যন্ত পনের হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে ভুট্টার চাষ হয়েছে।
সম্প্রতি ফুলছড়ি উপজেলার চর রসুলপুর, বেলেরচর, চর কুচখালি, গুপ্তমনির চরসহ বিভিন্ন চরাঞ্চলে দেখা গেছে ফসলের মাঠে শুধু সবুজের সমারহ। মাঠজুড়ে সারি সারি গাছগুলো বেড়ে উঠছে। দেখলেই মন জুড়িয়ে যায়। চাষিরা ভুট্টা রোপণের পর বেড়ে ওঠা গাছ ও খেতের পরিচর্যা করছেন। পরিবেশ অনুকূলে থাকলে এবার বাম্পার ফলনের আশা করছেন এ অঞ্চলের চাষিরা।
ফুলছড়ির বেলেরচরের চাষি মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, অন্য ফসলের চেয়ে খরচ কম হওয়ায় জমিতে ভুট্টা চাষ করি। এতে বেশি লাভবান হওয়া যায়। আমি পাঁচ বিঘা জমিতে ভুট্টা চাষ করেছি। এক বিঘা জমিতে ধান চাষ করলে ১৫ থেকে ২০ মণ ধান হয়। অন্যদিকে এক বিঘা জমিতে ভুট্টা হয় ৩০ থেকে ৩৫ মণ। ভুট্টা চাষে সেচ কম লাগে, সারের ব্যবহারও কম। আবহাওয়া ভালো থাকলে গত বছরের মতো এবারও ভুট্টার বেশি ফলন হবে।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

 

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com