সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৯:১২ পূর্বাহ্ন

পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয়ে ই-টেন্ডারে দুর্নীতিঃ চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপে লটারী বন্ধ

পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয়ে ই-টেন্ডারে দুর্নীতিঃ চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপে লটারী বন্ধ

স্টাফ রিপোর্টারঃ নিম্ন দরে টেন্ডার দাখিল কিংবা লটারিতে নাম উঠলেও যথেষ্ট নয় বরং ইঞ্জিনিয়ার সাথে টাকায় রফাদফা না হলে কাজ পাবে অন্যজন, না হয় রি-টেন্ডার। এমন ঘটনা হরহামেশা চলছে পলাশবাড়ী উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের কার্যালয়ে।
অভিযোগে প্রকাশ, পলাশবাড়ী উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের গত ১৬/০২/২০২১ ইং টেন্ডার দাখিলের জন্য নোটিশ দিয়ে প্রচার করে, যার নোটিশ নং-০৪ তাং- ১৬/০২/২০২১ ইং। নোটিশ মোতাবেক নির্দিষ্ট দিনে পশ্চিম তালুক ঘোড়াবান্ধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিমানা প্রাচীর ও গেইট নির্মানের কাজের জন্য ৫% নিম্ন দরে সাদিত রানা নামে টেন্ডার দাখিল করেন। দাখিলকৃত দরপত্রের সাথে কাগজপত্র যাচাই বাছাই শেষে যথার্থ দরপত্র গুলো ই-লটারী হলে পশ্চিম তালুক ঘোড়াবান্ধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিমানা প্রাচীর নির্মানের জন্য সাদিত রানা ঠিকাদার নির্বাচিত হন। তবে মোটা অংকের উৎকোচ দিতে রাজী না হওয়ায় ইঞ্জিনিয়ার তাহাজ্জদ হোসেন কোন কারণ ছাড়াই কোন প্রকার নোটিশ বা প্রচার না করে সাদিত রানা ঠিকাদারের নামে লটারীতে নির্বাচিত কাজ পশ্চিম তালুক ঘোড়াবান্ধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিমানা প্রাচীর ও গেইট নির্মান কাজটি গত ১৭ জুন কাজটি রি টেন্ডার করার জন্য ১৬ জুন নোটিশ করেন। ঠিকাদার সাদিত রানা কাজটির রি -টেন্ডার হওয়ার কারণ জানতে চাইলে ইঞ্জিনিয়ার কোন পাত্তা দেননি। ফলে নিরুপায় হয়ে সাদিত রানা পলাশবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান বরাবরে এলজিইডির প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অনিয়মের তথ্য তুলে ধরে ১৭ তারিখের অবৈধ রি-টেন্ডার ও লটারী বন্ধ করার আবেদন করলে উপজেলা চেয়ারম্যান বিষয়টি আমলে নিয়ে উপজেলা প্রকৌশলী কর্তৃক আহবানকৃত রি-টেন্ডার ও সংশ্লিষ্ট বিষয়ে লটারী কার্যক্রম বন্ধ করেন।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com