মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৫০ অপরাহ্ন

পলাশবাড়ীর আমলাগাছী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি নিজেই রোগী

পলাশবাড়ীর আমলাগাছী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি নিজেই রোগী

পলাশবাড়ী প্রতিনিধিঃ পলাশবাড়ীর আমলাগাছী উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি নিজেই রোগী। ফার্মাসিস্ট জানেনা অফিস টাইম কয়টা থেকে কয়টা পর্যন্ত। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, পলাশবাড়ী উপজেলার আমলাগাছীতে একটি উচ্চ বিদ্যালয়, একটি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, একটি মাদ্রাসা, একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি বাজার নিয়ে গড়ে উঠা আমলাগাছী বাজার। এই জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানেই গড়ে ওঠা আমলাগাছী উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি। উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি সরকারি নিয়ম-নীতি উপেক্ষা করে ও কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্ব অবহেলার কারণে স্বাস্থ্য সেবা নিতে ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছে এলাকার দরিদ্র মানুষদের। গত ১৮ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টার সময় ওই উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে তালাবদ্ধ ও ঔষধ নিতে আসা রোগীদের অপেক্ষা করতে দেখা যায়। তারা জানান, এই উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি অধিকাংশ সময়ই বন্ধ থাকে। সময় অনুযায়ী খোলা থাকতে দেখা যায়না। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির চারদিকে খড়কুটা ও আবর্জনায় ভরা। ওই উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত স্যাকমো শামীম মিয়ার নিকট উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি বন্ধের ব্যাপারে জানাতে চাইলে তিনি জানান, আমি সপ্তাহে তিনদিন বসি। আজকে আমি ওখানে বসবো না। ১১টা ৫ মিনিটে কর্মরত ফার্মাস্টি রফিকুল ইসলাম উপস্থিত হলে তার নিকট কয়েটা থেকে কয়টা পর্যন্ত উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি চলার নিয়ম তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, কয়টা থেকে কয়টা পর্যন্ত খোলা থাকার নিয়ম আছে এ ধরনের কোন চিঠি আমি পাইনি তাই বলতে পারবনা। তবে সকাল ১০টার সময় আমি আসি আর সাড়ে ১০টার থেকে লোকজন ঔষধ নিতে আসে। এলাকাবাসী জানান, ঠিকমতো ঔষধ এখানে পাওয়া যায়না। অনেক সময় উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটি বন্ধ পাওয়া যায়। তাহলে সরকারের বরাদ্দকৃত ঔষধ গুলো কোথায় যায়? তাই সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com