বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
খোর্দ্দকোমরপুর ইউপির উপনির্বাচন স্থগিত কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিঃ গাইবান্ধায় আ’লীগ-বিএনপির অফিসে-হামলা-অগ্নিসংযোগ সুন্দরগঞ্জে কোটা নিয়ে মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সুন্দরগঞ্জে নিখোঁজ যুবকের লাশ একদিন পর উদ্ধার গোবিন্দগঞ্জে ২ মাহিলা ছিনতাইকারী গ্রেফতার মহিমাগঞ্জে প্রধান গ্রুপের সার্ভার স্টেশনে অগ্নিকান্ডে ৫০ লক্ষ টাকার ক্ষতি পলাশবাড়ীতে মোটরসাইকেল সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ঃ আহত ১ জন গোবিন্দগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালেয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ফলজ বৃক্ষের চারা বিতরণ তিস্তার পানি কমার সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে ভাঙন শুরু হয়েছে পলাশবাড়ীতে মটরসাইকেলের ধাক্কায় যুবক নিহত

নির্মাণ কাজ শেষ না হতেই ধসে গেছে রামডাকুয়া সেতু

নির্মাণ কাজ শেষ না হতেই ধসে গেছে রামডাকুয়া সেতু

সুন্দরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ রামডাকুয়া সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ এবং উদ্বোধন না হওয়ার আগেই ধসে গেছে পূর্ব পার্শ্বের সংযোগ সড়কসহ শেষ প্রান্তের পিলার সংলগ্ন একাংশ। গত এক সপ্তাহ ধরে অবিরাম বৃষ্টি বাদলে কারণে প্রায় ৩০ফুট জায়গা ধসে গিয়ে ফাটল দেখা দিয়েছে। স্থানীয়দের দাবি নির্মাণ কাজের শুরু থেকে সেতুর কাজে ব্যাপক অনিয়ম করে আসছিল ঠিকাদার ও নকশাকার মইনুল ইসলাম। এনিয়ে বেশ কয়েক বার কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। তারপরও প্রভাব খাটিয়ে কাজটি শেষ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে। এখনও উদ্বোধন করা হয়নি। তিস্তার চরবাসির দীর্ঘদিনের কষ্ট লাঘব এবং স্বপ্ন বাস্তবায়নে নির্মাণ হয় রামডাকুয়া সেতু। ২০২০ সালের মার্চ মাসে নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। অথচ ২০২১ সালের আগষ্ট মাসেও কাজ শেষ হয়নি। ঢাকার ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান পুরকৌশল প্রযুক্তি লিমিটেড ৯৬ মিটার লম্বা পিসি গার্ডার সেতু দু’পাশে ৫০মিটার করে ১০০ মিটার সয়যোগ সড়ক নির্মাণ করে। নির্মাণ কাজের বরাদ্দ ছিল ৫ কোটি ৫৭ লাখ ৯৮ হাজার ৪৪৪ টাকা। ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়। সুন্দরগঞ্জ পৌর সভার রামডাকুয়া মহল্লার মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত তিস্তার শাখা নদীর উপর নির্মাণ করা হয় সেতুটি। উপজেলার বেলকা, হরিপুর, তারাপুর সহ পাশ্ববর্তী কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর ও চিলমারি উপজেলার প্রায় ৩০ গ্রামবাসি প্রতিদিন রামডাকুয়ার শাখা নদী দিয়ে পায়ে হেঁটে, নৌকা যোগে কষ্ট করে উপজেলা শহরে আসা যাওয়া করে আসছিল। এরই এক পর্যায়ে ২০১২ সালে তৎকালিন সংসদ সদস্য ব্যক্তিগত উদ্যোগে ইঞ্জিনিয়ারিং প্লান ইস্টিমেট ছাড়াই একটি সেতু নির্মাণ করেছিল। কিন্তু ২০১৫ সালে বন্যার স্রােতে সেতুটি ভেসে যায়। এরপর থেকে চরবাসি কষ্ট করে চলাফেরা করছিল। ২০১৯ সালে এলজিইডি সেতুটির নির্মাণ কাজ শুরু করে। বেলকা চরের আঃলীগ নেতা মজিবর রহমান মজি জানান নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। সেতুটি উদ্বোধন না হতেই যেহেতু ধস ও ফাটল দেখা দিয়েছে, সে হিসেবে সেতুটির টিকসই কি হবে তা ভাববার বিষয়। সেতুর দায়িত্বে থাকা উপসহকারি প্রকৌশলী নকশাকার মইনুল ইসলাম জানান, বৃষ্টির কারনে ধসে গেছে, দ্রুত মেরামত করা হবে। উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবুল মুনছুর জানান, সেতুর সংযোগ সড়কের পাশের বাড়ির মালিক জায়গা না দেয়ায় সংযোগ সড়কের স্লাব প্ল্যান মোতাবেক করা সম্ভব হয়নি সে কারনে ধসে গেছে। আশু প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com