রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৫১ পূর্বাহ্ন

নলডাঙ্গা হাটের গণশৌচাগার কোন কাজে আসছে না

নলডাঙ্গা হাটের গণশৌচাগার কোন কাজে আসছে না

নলডাঙ্গা (সাদুল্লাপুর) প্রতিনিধিঃ সাদুল্লাপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী নলডাঙ্গা হাটে সরকারী অর্থায়নে জনস্বার্থে স্থাপিত গণশৌচাগুলোর জনসাধারনের কোন কাজে আসছে না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবহেলায় আর অযতেœ গণশৌচাগারগুলো ব্যবহার অনুপোযোগি হয়ে পড়ছে।
এতে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও হাটে আগত লোকজনদের প্রতিনিয়তই চরম দূর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।
ভূক্তভোগিদের অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নেক নজরের অভাবে গণশৌচাগারগুলো সংস্কার ও মেরামত না করায় দরজা গুলো ভেঙ্গে গেছে। খসে পড়ছে দেয়াল, মেঝের ও ছাদের পলেস্তার ।
এসব গণশৌচাগারগুলো এখন ব্যবহার অনুপোযোগি হওয়ায় চারিদিকে ঝোঁপ জঙ্গলে ঘিরে ফেলছে। ফলে গণশৌচাগারগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এ অবস্থায় স্থানীয় ব্যবসায়ী ও হাটে আগত লোকজনদের মলমুত্র ত্যাগে চরম বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে পড়তে হচ্ছে।
অনেকেই নিরূপায় হয়ে হাটের আশেপাশে যত্রতত্রভাবে মলমুত্র ত্যাগ করছে। এমন পরিস্থিতিতে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ায় পরিবেশ মারাত্নক ভাবে দুষিত হয়ে জনস্বাস্থ্য অনেকটা হুমকির মুখে পড়ছে।
জানা গেছে, নলডাঙ্গা এ হাটটি সপ্তাহে শুক্রবার ও সোমবার দুদিন হাট ও ৪ দিন নিয়মিত বাজার বসে। হাটটিতে বিভিন্নস্থান থেকে হাজার হাজার হাটুরে লোকজনসহ ব্যবসায়ীদের সমাগম ঘটে থাকে।
নলডাঙ্গা হাটের মাছের আড়ৎদার আঃ ছালাম বলেন, খুব গরম কিংবা একটু বাতাস হলেই গন্ধে হাটে থাকা যায় না।
হাটে আগত আমিনুল ইসলাম, আঃ ছাত্তার, নুরুল আমিন ও সোহাগ মিয়াসহ অনেকেই বলেন, হাটের ময়লা আবর্জনা ফেলার নির্ধারিত কোন স্থান নেই। ফলে যেখানে সেখানে আবর্জনা ফেলায় আর প্রস্রাব পায়খানার গন্ধে হাটে গিয়ে খরচ করা খুবই দুস্কর হয়ে পড়ে।
অনেক সময় অসহনীয় দুর্গন্ধে নাক চেপে ধরে তড়িঘড়ি করে বাজার খরচ করে চলে আসতে হয়। স্থানীয় ভেটেনারী ব্যবসায়ী রেজাউল করিম ক্ষোভের সাথে বলেন,প্রতিবছর এ হাটটি থেকে সরকার লাখ লাখ টাকা রাজস্ব পেলেও এ পর্যন্ত হাটটির দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি। বর্তমান সরকার হাট বাজারের উন্নয়ন ও আঁধুনিকায়নে কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়। অথচ এতিহ্যবাহী এ হাটটির নাজুক পরিস্থিতি নিয়ে কারো কোন ভাবনা নেই বললেই চলে।
নলডাঙ্গা হাট ইজারাদারের পক্ষে শাহিন চোকদার বলেন, হাট বাজার উন্নয়নের জন্য প্রতি বছর ইজারার টাকা থেকে একটি অংশ ইউনিয়ন পরিষদ পেয়ে থাকে। এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সবকিছু বলতে পারবেন। এখানে ইজারাদারের কিছু করার নেই।
নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও হাট পরিচালনা কমিটির সভাপতি জয়নাল আবেদীন বলেন, হাটের বিদ্যমান এসব সমস্যা নিয়ে ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সহ ইউএনও স্যারের সাথে কথা হয়েছে। তিনি পরবর্তীতে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com