বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০১:৫৫ অপরাহ্ন

নলডাঙ্গা-সাদুল্লাপুর সড়কটি প্রশস্তকরনের দাবি এলাকাবাসির

নলডাঙ্গা-সাদুল্লাপুর সড়কটি প্রশস্তকরনের দাবি এলাকাবাসির

নলডাঙ্গা (সাদুল্লাপুর ) প্রতিনিধিঃ সাদুল্লাপুর উপজেলার নলডাঙ্গা-সাদুল্লাপুর জনগুরুত্বপূর্ন পাকা সড়কটি সরু হওয়ায় সকল প্রকার যানবাহনসহ পথচারীদের চলাচলে সীমাহীন দূর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। এতে প্রতিনিয়তই ঘটছে ছোট বড় দূর্ঘটনা। এমতবস্থায় দূর্ঘটনার আশঙ্কায় সড়কটি প্রশস্তকরনের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসি।
স্থানীয়রা জানান, ব্যস্ততম সড়কটি দিয়ে দিবারাত্রি যাত্রীবাহী ও পণ্যবাহী দুরপাল্লার ঢাকাগামী বাস কোচ, মাইক্রোবাস, পিকআপ, সিএনজি ও মোটর সাইকেলসহ বিভিন্ন ধরনের অসংখ্য যানবাহন চলাচল করে। এসব যানবাহন যোগে এ এলাকার হাজার হাজার মানুষজন একমাত্র এই সড়কটি দিয়ে প্রতিনিয়ত নানাবিধ কাজে রাজধানী ঢাকা, জেলা শহর গাইবান্ধা ও উপজেলা শহর সাদুল্লাপুর সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে। এছাড়া এই সড়কে বিভিন্ন রকম পণ্যবাহী ভারী ও হালকা যানবাহন চলাচল করে থাকে। কিন্তু সড়কটি সরু হওয়ায় দুরপাল্লার বাস কোচ ও ট্রাক মুখোমুখি ক্রসিং কিংবা পিছন থেকে অতিক্রম করা খুবই দুস্কর হয়ে পড়ে।
তবুও চালকেরা সাবধানতার সাথে অনেক কষ্টে মারাত্নক ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। এ অবস্থায় বাস ট্রাক ধীর গতিতে ক্রসিং করতে ৫ থেকে ১০ মিনিট পর্যন্ত সময় লাগে। এ সময় গোটা সড়কটি বন্ধ হয়ে যায়। বিদ্যমান এ পরিস্থিতিতে কোন পথচারী ও অন্যকোন যানবাহন চলাচলের আর কোন উপায় থাকেনা। এরই মধ্যে মুহুর্তেই সড়কের দুই দিকে বিভিন্ন ধরনের শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। এ নিয়ে বাস ট্রাকের চালক ও হেলপারদের সাথে প্রায়ই পথচারীদের তুমুল বাগবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।
বাস চালক জিয়াদুল ইসলাম বলেন,সড়কটি চিকন হওয়ায় স্বাভাবিক গতিতেও গাড়ী চালানো যায় না।
এরমধ্যে আবার কোন গাড়ী সামনাসামনি হলে ক্রসিং করার সময় সড়কের এককোণে চাপিয়ে ঝুঁকিপূর্ন ভাবে ক্রস করতে হয়।
স্থানীয় ব্যাটারীটালিত ভ্যান ও অটোবাইক চালক, বক্তার, জাহিদুল মিয়া, এনামুল এবং আমজাদ হোসেন বলেন, সড়কটি ছোট হওয়ায় বাসট্রাক সামনাসামনি কাটাকাটি করার সময় আমরা আর ভ্যান নিয়ে যেতে পারি না। যাত্রী নিয়ে বেশ কিছুক্ষন দাড়িয়ে থাকতে হয়। এ সময় যাত্রীরা অনেকটা বিরক্তবোধ করেন। তাই সড়কটি বড় করা খুবই দরকার। ওই সড়কে চলাচলকারী বাইসাইকেল আরোহী জহির মিয়া জানান, ছোট এই সড়কে বড় কোন গাড়ী দেখলে ভয়ে সাইকেল থেকে লাফ দিয়ে নেমে সড়কের এক কোণে গিয়ে দাড়িয়ে থাকতে হয়। পথচারী আমিনুল, আনোয়ার হোসেন, নুরুল আমিন,রহিম উদ্দিন সহ অনেকেই বলেন, কিছু কিছু বাস ট্রাক ও মোটর সাইকেল যেভাবে বেপরোয়া গতিতে চলাচল করে এতে যেকোন মুহুর্তে বড় দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হাবিজার রহমান পাটোয়ারী বলেন,সরু এই সড়কটিতে পথচারী ও বিভিন্ন ধরনের যানবাহনের চাপ অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাওয়ায় বন্দরের গুরুত্বপূর্ন স্থানগুলোতে তীব্র যানযটের সৃষ্টি হয়। এ অবস্থা থেকে পরিত্রান পেতে সড়কটি প্রশস্তকরন একান্ত অপরিহার্য। এ ব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদের মিটিংয়ে প্রায়ই আলোচনা করা হয়।
নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন বলেন, সড়কটি ঝুঁকিপূর্ন হলেও এটি আমাদের ইউনিয়ন পরিষদের আওতধীন নয়। এক্ষেত্রে আমাদের কিছু করার নেই। তবে এর আগে এ বিষয়ে উপজেলা পরিষদের সভায় আলোচনা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জানতে উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোনটি ধরেননি।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com