মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৫৫ অপরাহ্ন

ধাপেরহাটে বর্ষা মৌসুমে পানির অভাবে পাট নিয়ে বিপাকে চাষী

ধাপেরহাটে বর্ষা মৌসুমে পানির অভাবে পাট নিয়ে বিপাকে চাষী

ধাপেরহাট (সাদুল্লাপুর) প্রতিনিধি ঃ পাটকে বাংলাদেশের সোনালী আশ বলা হলেও এ পাট বর্তমান কৃষকের গলার ফাঁস হয়েছে। প্রধান অর্থকারী ফসল পাট পানির অভাবে ডোবা নালায় শুকিয়ে যাচ্ছে, পাট পঁচাতে দেয়া ডোবা নালা গুলো হয়েছে গোচারন ভৃমি, এমনি দৃশ্য দেখা গেছে সাদুল্যাপুরের লালমাটি এলাকা খ্যাত ধাপেরহাট এলাকায়, অনাবৃষ্টির কারনে পাট জাগ দিতে পারছেন না এ এলাকার অনেক পাট চাষী, কথা হয় হিংগার পাড়া গ্রামের পাট চাষী জুয়েল মিয়ার সাথে তিনি জানান ১ বিঘা জমিতে পাটচাষ করেছি, অনেক টাকা খরচ হয়েছে এখন তো তার অর্ধেক টাকাও আসবেনা, বাড়ীর পাশে পুকুরে পাট জাগ দিয়েছে ক’ দিন পরেই পুকুরের পানি শুকিয়া যায়। শ্রাবণ ভাদ্র মাসে পাট পচানোর উপযুক্ত সময় হলেও এসময় নেই বৃষ্টি শুখিয়ে গেছে এলাকার সব ডোবা, নালা। আমি গত ৭ দিন ধরে উচ্চমৃল্যে তেল কিনে শ্যালো মেশিন দিয়ে পুকুরে পানি সেচ দিচ্ছি, তবু পাটে জাগ অথাৎ পঁচন আসছেনা,বাধ্য হয়ে চড়া মুল্যে কামলা নিয়ে পাট ধুয়ে নিচ্ছি ,পাটের কালার হওয়ার কথা সাদা পানি না থাকায় তা কালো আকার ধারন করেছে। জমি থেকে পাট কাটার পর সেই পাট ২০/২২ দিন পঁচার জন্য পানিতে ডুবে রাখতে হয়, কিন্তু এবার সেই পরিমান পানি বা বৃষ্টি অত্র এলাকায় হয়নি। কথা হয় পাটের কাজ করা কামলা বাদশা মিয়ার সাথে তিনি দুঃখ করে বলেন, পাট ধুইতে হাতের ছাল উঠে গেছে, পানির অভাবে পাট ভাল ভাবে পঁচে নাই, তাই কাজ করতে খুবই কষ্ট হচ্ছে, অনেক চাষী পানির অভাবে পাট জাগ দিতে না পারায় রাস্তার পাশে ফেলে রেখে শুকিয়ে জ্বালানী হিসাবে ব্যাবহার করছে, হিংগার পাড়ার অপর চাষী সামছুল জানান পানি দেখে নিচু ডোবায় পাট জাগ দিয়ে ছিলাম ক দিন পর ডোবা শুখে আমার পাটের জাগের উপর গরু ছাগল ঘাষ খাচ্ছে আমার সবই লোকসান, ঐ এলাকার ইউ,পি সদস্য আঃ রাজ্জাক বলেন, এ এলাকার পাটচাষীরা পানির অভাবে পাট পচাতে না পেয়ে অনেক ক্ষতি গ্রস্ত হয়েছে প্রায় শতাধিক পাট চাষী পানির অভাবে পাট পচাতে পারছেন না তারা অনেক বিপাকে আছে।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com