মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৩৩ অপরাহ্ন

চকবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল অবস্থা

চকবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল অবস্থা

পলাশবাড়ী প্রতিনিধিঃ পলাশবাড়ীর তেকানী ও চকবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল অবস্থা, যা দেখার কেউ নেই। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, পলাশবাড়ী উপজেলার কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের প্রত্যন্ত পল্লী তেকানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন থেকে শিক্ষার্থী শূন্য হয়ে পড়েছে। প্রধান শিক্ষক সংশ্লিষ্ট এটিও’র সঙ্গে কুশল বিনিময় করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা হয়ে আসছে। গতকাল ১১ জুন তেকানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে শিক্ষার্থী শূন্য দেখা যায়। ওই মূহূত্বেই প্রধান শিক্ষককে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে পতাকা উত্তোলন করতে দেখা যায়। বিদ্যালয়ের পাশ^বর্তী লোকজন জানান প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই সকাল ১০ থেকে ১১টার মধ্যে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন এবং বেলা ১২টার দিকে বিদ্যালয় বন্ধ করে চলে যান। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলামের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, দীর্ঘদিন থেকে এই বিদ্যালয়ে শুধুমাত্র একজন শিক্ষক না থাকার কারণে বিদ্যালয়টি শিক্ষার্থী শূন্য হয়ে পড়েছে। বিদ্যালয়ের সভাপতি আঃ আজিজ জানান, বিদ্যালয়ে শিক্ষক থাকলে শিক্ষার্থী আসতো। একজন শিক্ষক রয়েছে তাকে অফিসিয়াল কাজকর্ম করতে হয়। একারণে শিক্ষার্থী শূন্য হয়ে পড়েছে। যে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী শূন্য আবার প্রতিবছর সরকার বরাদ্দ দিচ্ছে বলে জানা যায়। অপরদিকে একই ইউনিয়নের চকবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১২.৫০ মিনিটে উপস্থিত হয়ে কোন শিক্ষার্থী পাওয়া যায়নি। শুধু প্রধান শিক্ষক সাধন কুমার সরকার-কে অফিসে বসে থাকতে দেখা যায়। তিনি জানান, এ বিদ্যালয়ে তিনজন শিক্ষক রয়েছে। তার মধ্যে সহকারী শিক্ষক আসাদুল হক আজকে ছুটিতে আছে। অপর একজন সহকারী শিক্ষক লিপি খাতুন বাড়ীতে গিয়েছে। তিনি আরও জানান, এ বিদ্যালয়ে হাজিরা খাতা অনুযায়ী ৬১ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। ৫ম শ্রেণিতে ১৩ জন, ৪র্থ শ্রেণিতে ১০ জন, ৩য় শ্রেণিতে ৯ জন, ২য় শেণিতে ১২ জন, ১ম শ্রেণিতে ১১ জন ও শিশু শ্রেণিতে ৫ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। তার মধ্যে ৫৪ জন শিক্ষার্থী উপবৃত্তির আওতায় রয়েছে। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী শূন্য ব্যাপারে প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি জানান, কোন শিক্ষার্থী আজকে আসেনি। এদিকে এলাকাবাসী জানান, ওই বিদ্যালয়ে কোনদিনই দুপুর ১টার পর কোন শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে দেখা যায়না। এলাকার সচেতনমহল সরেজমিন তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com