মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:১২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
গৃহবধূ রপা লাশ উত্তোলনের আদেশ রংপুর চিনিকলে আখ মাড়াই বন্ধ হওয়ায় আখচাষীরা বিপাকে গাইবান্ধায় শীতের তীব্রতায় জনজীবন স্থবির গাইবান্ধা পৌরসভা ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডে মহিলা কাউন্সিলর পদে মাহাফুজা খান মিতা নির্বাচিত নলডাঙ্গায় ট্রেনের ধাক্কায় আহত নারীর মৃত্যু সাঘাটায় কারিগারি বিষয়ক ১ দিন ব্যাপি প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়িতে আগুন ও ম্যাজিষ্ট্রেটের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনায় দুটি মামলা দায়ের ॥ ৫ গ্রেফতার গোবিন্দগঞ্জে পৌর নির্বাচনে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রাফিকে দল থেকে বহিষ্কার গোবিন্দগঞ্জে ছাত্রলীগের বর্ধিত সভা উদীচীর রণেশ দাশ গুপ্তের জন্মবার্ষিকী পালিত

গোবিন্দগঞ্জে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে চলছে সড়ক সংস্কার

গোবিন্দগঞ্জে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে চলছে সড়ক সংস্কার

গোবিন্দগঞ্জ প্রতিনিধিঃ গোবিন্দগঞ্জে সড়ক সংস্কারে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে।
জানা গেছে, গাইবান্ধা জেলা পরিষদের অধীনে গোবিন্দগঞ্জ-মহিমাগঞ্জ আঞ্চলিক সড়ক নির্মাণ করা হয়। কিন্তু দীর্ঘদিন থেকে সড়কটি সংস্কার না করায় কার্পেটিং উঠে গিয়ে খানা-খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে গাইবান্ধা জেলার একমাত্র ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান রংপুর চিনিকলের আখ সরবরাহে ব্যবহৃত পরিবহনসহ সড়কে সকল যানবাহন চলাচলে বিঘিœত হয়। যে কারণে সড়কটি সংস্কারের জন্য টেন্ডার আহবান করা হয়। থানা চৌরাস্তা থেকে মহিমাগঞ্জ রোডে দেড় কিলোমিটার সড়ক সংস্কারে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৭৫ লাখ টাকা। কাজের টেন্ডার পান সাঘাটা উপজেলার ইয়ানূর ট্রেডার্স নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি নিজে কাজ না করে অধিক মূল্যে গোবিন্দগঞ্জের সিহাব কনট্রাকশনের স্বত্ত্বাধিকারী রফিকুল ইসলামের কাছে কাজটি হস্তান্তর করেন। এ বিষয়ে উক্ত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি।
স্থানীয়দের অভিযোগ, সড়ক সংস্কারে যেসব ইট, বালু ব্যবহার করা হচ্ছে তা অত্যান্ত নিম্নমানের। ২ ও ৩ নং ইটের খোয়া ও স্থানীয়ভাবে সংগ্রহ করা নিম্নমানের বালু দিয়েই চলছে কাজ। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ চললেও তা যেন দেখার কেউ নেই। অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে গিয়ে নিম্নমানের কাজে সত্যতা পাওয়া যায়। এছাড়া পুরাতন কার্পেটিং তুলে সেখানেই পুনরায় রেখে ওপরে নতুন খোয়া দিয়ে রোলার করা হচ্ছে। যা নিয়ে এলাকার সচেতন মহল প্রশ্ন তুলেছেন। ঘটনান্থলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাউকে পাওয়া যায়নি।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল লতিফ প্রধানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাজটি আমাদের দপ্তরের উপসহকারী প্রকৌশলী খায়রুল ইসলাম দেখভালের দায়িত্বে রয়েছেন। আপনারা তার সাথে কথা বলুন। এ ব্যাপারে উপসহকারী প্রকৌশলী খায়রুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, টেন্ডারের মাধ্যমে ইয়ানূর ট্রেডার্স নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজটি পায়। কিন্তু গোবিন্দগঞ্জের রফিকুল ইসলাম নামে ঠিকাদার কাজটি করছেন। নিম্নমানের কাজ করা হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
নিম্নমানের কাজের বিষয়ে ঠিকাদার রফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গোবিন্দগঞ্জে এর চেয়ে ভাল কাজ কে করছে দেখান। রিপেয়ারিংয়ের কাজ আর কি ভাল হবে। ভালমানের কাজ করলেও লোকজন অভিযোগ তুলে থাকেন। তাদের কথায় তো কাজ বন্ধ রাখা যাবেনা। কাজের মান খারাপ হলে সংশ্লিষ্ট দপ্তরই কাজ বন্ধ করে দিবেন।
এ ঘটনায় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বর্মনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা দেখা আমাদের দপ্তরের কাজ নয়। তার পরও আপনারা বলছেন বিষয়টি সরেজমিনে গিয়ে দেখা হবে।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com