মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন

গাইবান্ধা-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতি তুলনামূলক অনেকটাই কম শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত

গাইবান্ধা-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতি তুলনামূলক অনেকটাই কম শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ি) আসনে গতকাল শনিবার অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল তুলনামুলকভাবে অনেক কম। সকালের দিকে কোন কোন কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি কিছুটা বেশী পরিলক্ষিত হলেও ১১টার পর থেকেই ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি কমতে শুরু করে। এরপর থেকেই একজন দু’জন করে এসেই ভোট দিতে থাকে। ভোট শুরু হওয়ার সাথে সাথেই সাতারপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটারের সংখ্যা অনেক বেশী এবং ভোটারদের উৎসাহ উদ্দীপনা পরিলক্ষিত হয়। পার আমলাগাছিতেও সকালে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল ভালো। এ খবর লেখা পর্যন্ত কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
সাদুল্যাপুর উপজেলার ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন করে পলাশবাড়ি অভিমুখে যাওয়ার সময় পথে বিএনপি প্রার্থী ডাঃ সৈয়দ মইনুল হাসান সাদিক সাংবাদিকদের তাৎক্ষনিক এক সাক্ষাতকারে বলেন, অধিকাংশ কেন্দ্রেই নৌকা প্রার্থীর সমর্থকরা নৌকা মার্কায় জোর করে সীল মেরে ভোট নিচ্ছে। এব্যাপারে পুলিশ বা প্রশাসনের কোন তৎপরতা পরিলক্ষিত হচ্ছে না। এমনকি অভিযোগ করেও কোন সুফল পাওয়া যায়নি। সুইগ্রাম কেন্দ্রসহ অনেক কেন্দ্র থেকে তাদের পোলিং এজেন্টকে বের করে দেয়া হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও পোলিং এজেন্টদের উপস্থিতিতে জাল ভোট দেয়া হচ্ছে বলে প্রতিনিয়িতই তিনি অভিযোগ পাচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, এমনিতেই তার ধারণা ছিল শতকরা ৩০ থেকে ৪০ ভাগ ভোটার ভোট প্রদান করবেন। কিন্তু প্রকৃত অবস্থা হচ্ছে ভোটাররা জাল ভোটের ওই প্রবণতা দেখে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। ফলে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি অনেক কম।
এদিকে পলাশবাড়ি উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন টাউন হল কেন্দ্রের পাশে আওয়ামী লীগ দলীয় নৌকার প্রার্থী উম্মে কুলছুম স্মৃতি সাংবাদিকদের তাৎক্ষনিক সাক্ষাতকারে ভোট সম্পর্কে বলেন, ভোট সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এছাড়া কোথাও কোন বিশৃংখলার খবর পাওয়া যায়নি। তবে বিএনপি প্রার্থী ভোটে নিশ্চিত পরাজয় জেনে ভোট সম্পর্কে নানা মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে।
এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী উম্মে কুলছুম স্মৃতি, বিএনপির প্রার্থী ডাঃ মইনুল হাসান সাদিক, জাতীয় পার্টির প্রার্থী মইনুর রাব্বী চৌধুরী রোমান প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এছাড়া এসএম খাদেমুল ইসলাম খুদি জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের প্রার্থী হলেও পরে নৌকা মার্কার প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com