শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
খোর্দ্দকোমরপুর ইউপির উপনির্বাচন স্থগিত কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিঃ গাইবান্ধায় আ’লীগ-বিএনপির অফিসে-হামলা-অগ্নিসংযোগ সুন্দরগঞ্জে কোটা নিয়ে মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সুন্দরগঞ্জে নিখোঁজ যুবকের লাশ একদিন পর উদ্ধার গোবিন্দগঞ্জে ২ মাহিলা ছিনতাইকারী গ্রেফতার মহিমাগঞ্জে প্রধান গ্রুপের সার্ভার স্টেশনে অগ্নিকান্ডে ৫০ লক্ষ টাকার ক্ষতি পলাশবাড়ীতে মোটরসাইকেল সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ঃ আহত ১ জন গোবিন্দগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালেয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ফলজ বৃক্ষের চারা বিতরণ তিস্তার পানি কমার সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে ভাঙন শুরু হয়েছে পলাশবাড়ীতে মটরসাইকেলের ধাক্কায় যুবক নিহত

গাইবান্ধায় ১০০ টাকার কাঁঠাল ২০ টাকাঃ তবুও নেই ক্রেতা

গাইবান্ধায় ১০০ টাকার কাঁঠাল ২০ টাকাঃ তবুও নেই ক্রেতা

স্টাফ রিপোর্টারঃ সরকারঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধে প্রশাসনের কড়া নজর সারাদেশের হাট-বাজারে। প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হওয়া নিষেধ। এমন অবস্থায় বিপাকে পড়েছেন গাইবান্ধার কাঁঠাল উৎপাদনকারী কৃষক ও ব্যবসায়ীরা। ক্রেতা সংকটে ১০০ টাকার কাঁঠাল ১০ থেকে ২০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। এতে কৃষকরা ন্যায্যদাম পাচ্ছেন না, তেমনি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।
কৃষি বিভাগ বলছে, দেশের বিভিন্ন জেলায় কাঁঠালের চাহিদা রয়েছে। তবে করোনার কারণে চলমান কঠোর বিধিনিষেধে চাইলেও এখন কাঁঠাল বাজারজাত করা সম্ভব হচ্ছে না।
ফুলছড়ি উপজেলার কাঠাল ব্যবস্যায়ী মমতাজ মিয়া বলেন, ‘গাইবান্ধার জেলার ঐতিহ্যবাহী ভরতখালি ও ফুলছড়িতে প্রতি শনিবার ও মঙ্গলবার হাট বসে। গত মঙ্গলবার এই হাটে প্রশাসনের কঠোর নজরদারির কারণে ক্রেতা উপস্থিতি ছিল খুবই কম। এমন অবস্থায় কাঁঠাল বিক্রি করতে পারিনি। গতকাল রোববার কাঠাল বিক্রি করতে সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া বাজারে যাই, সেখানেও প্রশাসনের ভয়ে ক্রেতা ছিল না বললেই চলে। বাধ্য হয়ে ৭০ টাকায় কাঁঠাল কিনে ২০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। ন্যায্যদামে বিক্রি করতে না পেরে অনেক সময় পাকা কাঁঠাল গরুকে খাওয়াতে হচ্ছে।
সাঘাটা উপজেলার ঝাড়াবর্ষা গ্রামের সোহেল রানা বলেন, ‘আমাদের গাছের কাঁঠাল প্রতিবছর পাইকাররা কিনে নিয়ে যান । এ বছর কোনো পাইকার না থাকায় কাঁঠাল পেকে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। প্রায় ১০ থেকে ১৫ কেজি ওজনের কাঁঠাল ২০ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। যার দাম অন্যান্য বছর ১৬০ থেকে ২৫০ টাকার মতো হতো।
এ বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মাসুদুর রহমান বলেন, ‘চাহিদা অনুযায়ী দেশের বিভিন্ন জেলায় কাঁঠাল পাঠানোর সুযোগ আমরা করে দিতে পারি। কিন্তু করোনার কারণে সারাদেশে কঠোর বিধিনিষেধ চলছে। প্রয়োজনের বাইরে কেউ বাড়ি থেকে বের হতে হওয়া নিষেধ, এ কারণে আমরা ফলগুলো বাজারজাত করতে পারছি না।’

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com