শুক্রবার, ৩১ মার্চ ২০২৩, ০৯:৫০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
শিক্ষা ব্যাবস্থা উন্নত আধুনিক ও শিক্ষার মান উন্নয়নের কৃতিত্ব একমাত্র প্রধানমন্ত্রীর -মাহমুদ হাসান রিপন এমপি সুন্দরগঞ্জে সাব প্রাণী সম্পদ কল্যাণ কেন্দ্রের বেহালদশাঃ গ্রাম গঞ্জে পশু ডাক্তারের নামে হাতুড়ে ডাক্তারের ছড়াছড়ি গাইবান্ধায় আওয়ামীলীগের ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চ উদযাপন সাঘাটায় রেকর্ডভুক্ত জমিতে ব্রীজ নিমার্ণ কাজে বাধাঁ প্রদান করায় ঠিকাদার কর্তৃক থানায় অভিযোগ কলেজপাড়ায় পৌর নাগরিকদের সভা নলডাঙ্গায় নবীন ও বসন্ত বরণ অনুষ্ঠান গাইবান্ধায় স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে মতবিনিময় সভা গাইবান্ধায় মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন গোবিন্দগঞ্জে সরকারি বই বিক্রিকালে জনতার হাতে শিক্ষক-কর্মচারী আটক দারিয়াপুরে বাম জোটের সমাবেশ অনুষ্ঠিত

প্রচন্ড গরমে গাইবান্ধায় বোরো ধান কেটে ঘরে তুলতে ব্যস্ত কৃষকরা

প্রচন্ড গরমে গাইবান্ধায় বোরো ধান কেটে ঘরে তুলতে ব্যস্ত কৃষকরা

স্টাফ রিপোর্টারঃ গাইবান্ধায় বোরো ধান কাটার ধুম লেগেছে। ধান কাটা ও মাড়াই চলছে পুরোদমে। মাঠের সোনালি ধান এখন ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। চলতি বছর বোরো চাষে প্রতিকূল আবহাওয়া মোকাবিলা করতে হয়েছে জেলার কৃষকদের। কিন্তু বর্তমানে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় নির্বিঘেœ ধান কাটা, মাড়াই ও শুকানোর কাজ করতে পারছেন কিষান-কৃষানিরা। মাঠজুড়ে সোনালি ধানের মম গন্ধে মনের আনন্দে কাজ করছেন তাঁরা। কথা বলার মতো যেন ফুরসত নেই তাঁদের।
কৃষক ধান কেটে আঁটি বেঁধে কেউ মাথায় করে, আবার কেউ পরিবহনে করে বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছেন। বাড়ির উঠানে চলছে ধান মাড়াইয়ের কাজ। এসব ধান নিয়ে কৃষকের যেমন ব্যস্ততা, তেমনি আনন্দও লক্ষ করা যাচ্ছে।
সরেজমিনে বেশ কটি মাঠ ঘুরে দেখা গেছে আগে পেকে উঠা ব্রি-২৮ জাতের ধান কৃষকেরা কাটছে। এছাড়া দু একটি মাঠে ব্রি-২৯, ব্রি ধান ৮১, ও জিরাশাইল জাতের পাকা ধান কাটা হচ্ছে । পলশাবাড়ী উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়নের আজরার বিলে দেখা যায় কৃষক আতোয়ার, মঞ্জুর মিয়াসহ আরো বেশ ক’জন কৃষক ব্রি-২৮ জাতের ধান কাটছেন। এদের একজন জানান একদিন আগে কাটা এ জাতের ধানের আশানুরূপ ফলন পেয়েছেন। বিঘা প্রতি প্রায় ১৫-২০ মণ হারে ধান হয়েছে। এছাড়া আরো কটি এলাকার কৃষকেরা বেশ ভালো হারে ফলন পাচ্ছেন বলে জানান।
এদিকে জেলার বিভিন্ন এলাকায় নেক ব্লাস্টসহ বিভিন্ন রোগে কম হারে ফলন মিলছে । গত ৪ এপ্রিল কালো বৈশাখী ঝড়ের সময় হিট শকে প্রায় ১ হাজার হেক্টর জমির ধান পুড়ে যাওয়ায় ঐসব জমিতে ভালো ফলন হয়নি বলে জানান কৃষকেরা । মৌসুমের শুরুতেই ধানের দাম নিয়ে খুশি কৃষকরা । পুরোপুরি শুকনো একমণ ধান এক হাজার আশি থেকে সাড়ে এগারোশ টাকা দরে বেচাকেনা হচ্ছে বলে জানা গেছে ।
গাইবান্ধা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ মাসুদুর রহমান জানান, উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কৃষকদের মাঠপর্যায়ে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে দেওয়া হচ্ছে । উল্লেখ্য গাইবান্ধা জেলার সাত উপজেলায় এবছর, ১ লক্ষ ২৭ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে ।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com