মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:৩৪ অপরাহ্ন

গাইবান্ধায় দৈনিক ইত্তেফাকের ৬৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

গাইবান্ধায় দৈনিক ইত্তেফাকের ৬৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বলেছেন, ইত্তেফাক বাংলার (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) শোষিত মানুষকে স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখায়েছিল। ইত্তেফাক মানে একটি ইতিহাস। বাংলাদেশের ইতিহাস ইত্তেফাককে বাদ দিয়ে লেখা যাবে না। বাংলাদেশে অভ্যুদয়ের সকল আন্দোলন-সংগ্রামে তেজোদীপ্ত ভূমিকা রেখেছে ইত্তেফাক। এসব কারণে এই পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া সাংবাদিকতার ইতিহাসে চির স্মরণীয় ও পথিকৃৎ হয়ে থাকবেন। তার সাংবাদিকতার জীবনে কারো সাথে আপোস ও মাথা নত করেননি। তার হাত ধরে ইত্তেফাক দেশ, জাতি ও জনগণের মুখপত্র হিসাবে পরিণত হয়েছিল।
গতকাল মঙ্গলবার দৈনিক ইত্তেফাকের ৬৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠানে প্রেসক্লাবের সভাপতি কে. এম রেজাউল হকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম এসব কথা বলেন।
বক্তব্য রাখেন সাদুল্যাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহরিয়ার খান বিপ্লব, জেলা সনাকের সভাপতি ও বিশিষ্ট সাহিত্যিক গোবিন্দলাল দাস, বিশিষ্ট কবি ও ছড়াকার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর সাবু, অমিতাভ দাশ হিমুন, জিয়াউল হক জনি, দীপক কুমার পাল, আব্দুর রশিদ আজমী, মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, সরদার মোঃ শাহীদ হাসান লোটন, মাহমুদুল গনি রিজন, অ্যাডঃ ফজলে করিম আহমেদ পল্লব, শাহাবুল শাহীন তোতা, ইদ্রিসউজ্জামান মোনা, আরিফুল ইসলাম বাবু, কুদ্দুস আলম, কায়সার রহমান রোমেল, রিকতু প্রসাদ, খায়রুল ইসলাম, সাজ্জাদ হোসেন পল্টন, কামরুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর আলম, শেখ হুমায়ুন হক্কানী, শাহজাহান সোহেল, তোফায়েল হোসেন জাকির, সোলায়মান সরকার, মোঃ লাভলু মিয়া প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন দৈনিক ইত্তেফাকের জেলা প্রতিনিধি তাজুল ইসলাম রেজা।
পরে গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে কেক কাটেন জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম ও আমন্ত্রিত অতিথিরা।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com