শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
সদর হাসপাতালে দালালের দৌরাত্ম্যঃ হাসপাতালে প্রতিদিন ১ হাজার ২০০ রোগীকে সেবা দেওয়া হচ্ছে চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় খেলোয়ারদের শুভেচ্ছা গোবিন্দগঞ্জে গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার সুন্দরগঞ্জে পুকুরে ডুবে বৃদ্ধার মৃত্যু সাদুল্লাপুরে ছাত্রাইল বিলে শুরু হলো স্বপ্ন বিলাসীর যাত্রা গোবিন্দগঞ্জে এক ব্যক্তির রহস্যজনক মৃত্যুঃ আটক ১ গাইবান্ধায় সামাজিক সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত সরকার প্রাথমিক শিক্ষায় শিক্ষকদের ব্যাপক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করেছে- শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ঢাবিতে হামলার প্রতিবাদে গাইবান্ধায় ছাত্রদলের বিক্ষোভ সাদুল্লাপুরে দুর্গাপূজায় মোতায়েন থাকবে ৪৮০ জন আনসার সদস্য

গাইবান্ধার রসমঞ্জুরী এখন ব্র্যান্ডিং খাবার

গাইবান্ধার রসমঞ্জুরী এখন ব্র্যান্ডিং খাবার

স্টাফ রিপোর্টারঃ গুণে, মানে ও স্বাদে অন্যতম সেরা মিষ্টান্ন রসমঞ্জুরী। প্রায় শত বছর ধরে এ ঐতিহ্য ধরে রেখেছেন গাইবান্ধার কারিগররা। রসমঞ্জুরীর জেলা নামেও পরিচিতি লাভ করেছে গাইবান্ধা। এখানকার তৈরি রসমঞ্জুরী এখন যাচ্ছে বিদেশেও। ইতোমধ্যে রসমঞ্জুরীকে গাইবান্ধা জেলার ব্র্যান্ডিং পণ্য ঘোষণা করা হয়েছে।
গাইবান্ধার রমেশ মিষ্টান্ন ভা-ারের মালিক কালীচরণ বলেছেন, আদিকাল থেকেই মিষ্টান্নের প্রতি বাঙালির আলাদা টান আছে। স্বাদ ও গুণ-মানের কারণে গাইবান্ধার রসমঞ্জুরীর আছে আলাদা সুনাম।
গাইবান্ধা পৌরসভার সাবেক মেয়র শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলন বলেছেন, গাইবান্ধাতে বেড়াতে এসেছেন, কিন্তু রসমঞ্জুরীর স্বাদ নেননি, এমন লোক খুঁজে পাওয়া মুশকিল। বিভিন্ন অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে অফিস-আদালতে, অতিথি আপ্যায়নে রসমঞ্জুরীর বিকল্প নেই এ জেলায়।
গাইবান্ধা মিষ্টান্ন ভা-ারের মালিক শামীম আহম্মেদ বলেন, আমরা প্রতিদিন অন্তত ৮ মণ রসমঞ্জুরী তৈরী করি। বিভিন্ন স্থান থেকে দুধের ছানা কিনে আনি। আগে হাতেই তৈরী হতো রসমঞ্জুরীর গুটি। স্বাস্থ্যসম্মত করার জন্য এখন মেশিনে গুটি তৈরী করে মেশিনের মাধ্যমেই দুধে মেশানো হয়।
গাইবান্ধায় কয়েকটি প্রতিষ্ঠান রসমঞ্জুরী তৈরীতে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছে। এসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য গাইবান্ধা মিষ্টান্ন ভা-ার, নারু বাবুর দোকান, রমেশ মিষ্টান্ন ভা-ার প্রভৃতি। এসব প্রতিষ্ঠান স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করছে।
রসমঞ্জুরী তৈরীর উপকরণ হলো গরুর খাঁটি দুধ, চিনি, দুধের ছানা ও ছোট এলাচ। গরুর দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন ক্ষীর তৈরী করা হয়। তাতে মেশানো হয় পরিমাণমতো চিনি। ছানা দিয়ে তৈরী ছোট ছোট গোলাকার গুটি চিনির সিরকায় জ্বাল দিয়ে বাদামী রং হলে সেগুলো ক্ষীরে মেশানো হয়। গুটিগুলো ঘন ক্ষীরে মঞ্জুরিস্থ হয়ে দুটি ভিন্ন স্বাদের সমন্বয়ে সৃষ্টি করে তৃতীয় মাত্রার অপূর্ব স্বাদ। তাই, এ মিষ্টির নাম রসমঞ্জুরী।
গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক মোঃ অলিউর রহমান বলেছেন, রসমঞ্জুরী রসালো ও সুস্বাদু মিষ্টান্ন। এটি আমাদের জেলার ব্র্যান্ডিং খাবার।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com