শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০৭:৪৫ অপরাহ্ন

কালবৈশাখীর ঝড়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ জনে

কালবৈশাখীর ঝড়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ জনে

স্টাফ রিপোর্টারঃ গাইবান্ধা জেলা সদরসহ সাত উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া গত রোববার প্রচ- কালবৈশাখী ঝড়ে পড়া গাছের নিচে, ঘরের চাপা ও উড়ে আসা ঘরের টিনের চালায় চাপা পড়ে আহতদের মধ্য থেকে এখন মৃতের সংখ্যা বেড়ে এখন দাঁড়িয়েছে ১০ জন। প্রচন্ড কাল বৈশাখী ঝড়ে গাছ উপড়ে বাড়ী-ঘরের চালা ভেঙ্গে বিদ্যুতের লাইন ও ইন্টারনেট সংযোগ লন্ডভন্ড হয়ে যায়। ফলে শহরবাসীকে ৯ ঘন্টা অন্ধকারে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় । এতে করে শহরের দৈনিক পত্রিকা গুলির প্রকাশনা বন্ধ হয়ে যায় ।
নতুন করে যে ৬ জনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে তারা হলো- সদর উপজেলার বাদিয়াখালী ইউনিয়নের সরকারটারি রিফাইতপুর গ্রামের খগেন্দ্র নাথের স্ত্রী জোসনা রাণী (৬৫), রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের হরিণসিংহা তিনগাছেরতল গ্রামের হিরু মিয়ার শিশু পুত্র মনির হোসেন (৫) ও আরজি বাসুদেবপুর গ্রামের রিজু মিয়ার স্ত্রী আরজিনা বেগম (২৮), মালিবাড়ি ইউনিয়নের ঢনঢনিপাড়ার মিঠু মিয়ার স্ত্রী সাহেরা বেগম (৪০), ফুলছড়ি উপজেলার এরেন্ডাবাড়ি ইউনিয়নের ডাকাতিয়ার চর গ্রামের হাফিজ উদ্দিন (৬৫), পলাশবাড়ি উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়নের কুমিদপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের স্ত্রী মমতা বেগম (৬৪)।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, গত রোরবার দুপুর আড়াইটায় এক ঘন্টার প্রচন্ড কালবৈশাখী ঝড়ে ভেঙ্গে পড়া গাছের নিচে চাপা পড়ে যাদের মৃত্যু হয়, তারা হলো পলাশবাড়ী উপজেলার ডাকেরপাড়া গ্রামের ইউনুস আলীর স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৯), মোস্তফাপুর গ্রামের আব্বাস আলীর ছেলে গোফফার আলী (৩৮), সুন্দরগঞ্জ উপজেলার আমেনা বেগম (৪৫) ও ফুলছড়ি উপজেলার কাতলামারী গ্রামের শিমুলী বেগম (২৫)।

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com