রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১২:১৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
খোর্দ্দকোমরপুর ইউপির উপনির্বাচন স্থগিত কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিঃ গাইবান্ধায় আ’লীগ-বিএনপির অফিসে-হামলা-অগ্নিসংযোগ সুন্দরগঞ্জে কোটা নিয়ে মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সুন্দরগঞ্জে নিখোঁজ যুবকের লাশ একদিন পর উদ্ধার গোবিন্দগঞ্জে ২ মাহিলা ছিনতাইকারী গ্রেফতার মহিমাগঞ্জে প্রধান গ্রুপের সার্ভার স্টেশনে অগ্নিকান্ডে ৫০ লক্ষ টাকার ক্ষতি পলাশবাড়ীতে মোটরসাইকেল সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ঃ আহত ১ জন গোবিন্দগঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালেয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ফলজ বৃক্ষের চারা বিতরণ তিস্তার পানি কমার সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে ভাঙন শুরু হয়েছে পলাশবাড়ীতে মটরসাইকেলের ধাক্কায় যুবক নিহত

অবশেষে গাইবান্ধা প্রেসক্লাব সিলগালা

অবশেষে গাইবান্ধা প্রেসক্লাব সিলগালা

স্টাফ রিপোর্টারঃ অবশেষে গাইবান্ধা প্রেসক্লাব সিলগালা করেছে জেলা প্রশাসন। গতকাল ১৩ জুন দুপুরে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও জেলা প্রশাসকের (ডিসি) পক্ষে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মাহমুদ আল হাসান গাইবান্ধা প্রেস ক্লাব সাময়িকভাবে সিলগালা করেন।
এ সময় তাঁর সাথে ছিলেন সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুলতানা রাজিয়া, সহকারী কমিশনার আশরাফুল হক ও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) সেরাজুল হকসহ অন্যরা।
ইউএনও মাহমুদ আল হাসান জানান, জেলা প্রশাসক কাজী নাহিদ রসুল বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে দ্রুততম সময়ে ব্যবস্থা নেবেন।
জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ মে গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের সদস্যদের পক্ষে ক্লাবের সভাপতি কে. এম রেজাউল হক ও যুগ্ম সম্পাদক ইদ্রিসউজ্জামান মোনা স্বাক্ষরিত সন্ত্রাসী কর্তৃক দখল ও বৈধ সদস্যদের বের করে দেয়া এবং যেকোন মুহুর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কায় এক পত্রে জেলা প্রশাসকের কাছে এক আবেদন করা হয়।
আবেদনপত্রে বলা হয়, ১৯৫৯ সালে প্রতিষ্ঠিত গাইবান্ধা প্রেসক্লাব একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান যা সাংবাদিকদের মর্যাদা, অধিকার নিয়ে নিরলস ভাবে কাজ করছে। ২০০১ সালে জেলা প্রশাসনের তৎকালীন কার্যালয় সংলগ্ন পরিত্যক্ত জায়গায় বর্তমান ভবনটি গড়ে তোলা হয়। সেই থেকে প্রবীন ও নবীন সাংবাদিকরা ভবনটিকে কেন্দ্র করে পেশাগত দায়িত্ব পালন করছেন।
গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সংগঠনের কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হচ্ছে। বর্তমান কমিটির মেয়াদ গত ৩১ ডিসেম্বর ২০২৩ সালে শেষ হয়। পরে গত ২৫ মে পূর্ব মনোনীত নির্বাচনের কমিশনারদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য সাধারণ সভা নির্ধারিত ছিল। ঐ সভার শুরু প্রাক্কালে অনারবোর্ড ও সাধারণ সদস্যদের তালিকার বোর্ড সুকৌশলে সরিয়ে ফেলে একটি চক্র। সাংবাদিক নামধারী কতিপয় সন্ত্রাসী জোর করে সভা কক্ষে ঢুকে চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি বৈধ সাংবাদিক সদস্যদের ওপর চড়াও হয়ে তাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। সন্ত্রাসীরা অবৈধভাবে নিজেদেরকে সদস্য দাবী করে রেজুলেশন খাতায় স্বাক্ষর করে। এই পরিস্থিতে সভাপতি কে.এম রেজাউল হক সভার মূলতবি ঘোষণা করেন।
এরপর ঐ বহিরাগত সন্ত্রাসীরা বিকেলে প্রেসক্লাব ভবনের দরজা ও মেইন গেইটের তালা ভেঙ্গে ফেলে নতুন তালা লাগিয়ে দখল করে নেয়। তারা সন্ধ্যায় অজ্ঞাতস্থানে বসে কমিটি করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মহলের চরম উদ্বেগ ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। অন্যান্য প্রেসক্লাবের সদস্যদের মধ্যেও চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোন মুহুর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের রুপ নিতে পারে।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

 

নিউজটি শেয়ান করুন

© All Rights Reserved © 2019
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com